1. rsumon83@gmail.com : Gobi Khobor : Mostofa Kamal
  2. omar1@gobikhobor.com : omar Faruk : omar Faruk
  3. ariful.bpi2012@gmail.com : Ariful Islam : Ariful Islam
  4. omar@gobikhobor.com : omar Faruk : omar Faruk
  5. rsaidul34@gmail.com : Saidul Islam : Saidul Islam
শ্রমিকের মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ - গোবি খবর
বৃহস্পতিবার, ২৮ মে ২০২০, ০৬:১৫ পূর্বাহ্ন

শ্রমিকের মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ

  • আপডেট করা হয়েছে : রবিবার, ১৭ মে, ২০২০
  • ১৫৪ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক: বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসের দেশে প্রভাবকালীণ সময়ে দেশে খুলেছে গার্মেন্টস সেক্টর। একদিনে বিপদের আশংকা অন্যদিকে দেশের জীবিকা নির্বাহ সহ দেশের অর্থনৈতিক চাকা সচল রাখতে বিশেষ শর্তে সরকারও গার্মেন্টস সেক্টর খোলার অনুমতি দিয়েছে। কাজ করতে গিয়ে করোনায় শ্রমিকের মৃত্যুর আশংকাও দেখা দিয়েছে। এমন অবস্থায় আইনে শ্রমিকের মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ কেমন হবে শ্রম আইন অনুসারে তুলে ধরার চেষ্টা করছি।

বাংলাদেশ শ্রম আইনের ধারা-১৯ অনুযায়ী কোন কর্মীকে মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ প্রদান করতে হবে।

মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ খুব ভাল ভাবে বুঝতে হলে আপনাকে চারটি জিনিস ভাল ভাবে লক্ষ্য করতে হবে।

১। কর্মীর চাকুরীর বয়স ২ বছরের বেশি হতে হবে।

২। চাকুরীরত থাকাকালীন অবস্থায় মৃত্যুবরন।

৩। প্রতিষ্ঠানে কর্মরত অবস্থায় মৃত্যুবরন।

৪। কর্মকালীন দুর্ঘটনার কারনে পরর্বতীতে মৃত্যুবরন।

প্রথমত, আপনাকে বুঝতে হবে, কে মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ পাবে এবং কে পাবে না?

যে ব্যক্তির চাকুরীর বয়স অবিচ্ছিন্নভাবে অন্তত ২ বছরের অধিকাল হয়েছে তিনিই শ্রম আইনের ১৯ ধারা অনুযায়ী মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ পাইবার অধিকারী হইবেন।

চাকুরীর বয়স যদি কোন কারনে ২ বছরের বেশি না হয়, কোন ভাবেই ১৯ ধারার ক্ষতিপূরণ পাবে না।

প্রথম শর্তপূরন হলে, আপনাকে অন্য তিনটি শর্ত বিবেচনায় আনতে হবে।

১। চাকুরীরত থাকা অবস্থায়।

চাকুরীরত ব্যপারটা কি আসলে?

আপনি একটা প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন কিন্তু আপনি কর্মঘন্টার বাহিরে বা ছুটিতে থাকাকালীন সময়ে যে কোন ভাবে মারা গেলে।

প্রতিবছর বা ছয় মাসের অধিক সময়ের কাজের জন্য ১ টি করে বেসিক পাবে আপনার পোষ্য।

২। কর্মরত অবস্থায় মৃত্যুবরন।

আপনি একজন কর্মী কর্ম ঘন্টার মধ্যে কর্মস্থালে বা কর্মস্থলের বাহিরে অফিসের কাজে থাকা অবস্থায় যে কোন ভাবে মৃত্যুবরন করলে।

আপনার পোষ্যরা প্রতিবছর বা ছয় মাসের অধিক সময় কাজের জন্য ৪৫ দিন করে মজুরি পাবেন।

৩। কর্মকালীন দুর্ঘটনা কারনে পরর্বতীতে মৃত্যুবরন।

আপনি একজন কর্মী কাজ করতে গিয়ে আহত হলেন এবং পরর্বতীতে ১ বা ২ মাস পরে মারা গেলেন।

আপনার পোষ্য ৬ মাস বা ১ বছর কাজের জন্য ৪৫ দিন করে মজুরী পাবেন।

সবার শেষে আপনাকে লক্ষ্য করতে হবে এই লাইনটি

“এই অর্থ মৃত শ্রমিক চাকুরী হইতে অবসর গ্রহন করিলে যে অবসরজনিত সুবিধা প্রাপ্ত হইতেন, তাহার অতিরিক্ত হিসাবে প্রদেয় হইবে।”

তার অর্থ হল একজন মৃত শ্রমিকের পোষ্য ১৯ ধারার ক্ষতিপূরণ পাইবেন এবং তার অতিরিক্ত হিসাবে শ্রম আইনের ধারা-২৮ অনুযায়ী প্রতিবছর কাজের জন্য ১টি করে বেসিক পাইবেন।

বাংলাদেশ শ্রম আইন, ২০০৬ শ্রমিকের মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ অংশ হুবহু তুলে ধরছি

[১৯। যদি কোন শ্রমিক কোন মালিকের অধীন অবিচ্ছিন্নভাবে অন্ততঃ ০২(দুই) বৎসরের অধিককাল চাকুরীরত থাকা অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন, তাহা হইলে মালিক মৃত শ্রমিকের কোন মনোনীত ব্যক্তি বা মনোনীত ব্যক্তির অবর্তমানে তাহার কোন পোষ্যকে তাহার প্রত্যেক পূর্ণ বৎসর বা উহার ০৬ (ছয়) মাসের অধিক সময় চাকুরীর জন্য ক্ষতিপূরণ হিসাবে ৩০(ত্রিশ) দিনের এবং প্রতিষ্ঠানে কর্মরত অবস্থায় অথবা কর্মকালীন দুর্ঘটনার কারণে পরবর্তীতে মৃত্যুর ক্ষেত্রে ৪৫ (পঁয়তাল্লিশ) দিনের মজুরী অথবা গ্রাচুইটি, যাহা অধিক হইবে, প্রদান করিবেন, এবং এই অর্থ মৃত শ্রমিক চাকুরী হইতে অবসর গ্রহণ করিলে যে অবসর জনিত সুবিধা প্রাপ্ত হইতেন, তাহার অতিরিক্ত হিসাবে প্রদেয় হইবে।]

ধারা ১৯ বাংলাদেশ শ্রম (সংশোধন) আইন, ২০১৩ (২০১৩ সনের ৩০ নং আইন) এর ১০ ধারাবলে প্রতিস্থাপিত।

Comments

comments

এই খবর সবার সাথে শেয়ার করুন

এই ধরনের আরও খবর

গোবিন্দগঞ্জ ও তৎসংলগ্ন এলাকার জন্য

সারাদেশের জন্য

© স্বত্ব গোবিখবর ২০১৩-২০২০

কারিগরি সহযোগিতায় Pigeon Soft