1. rsumon83@gmail.com : Gobi Khobor : Mostofa Kamal
  2. omar1@gobikhobor.com : omar Faruk : omar Faruk
  3. ariful.bpi2012@gmail.com : Ariful Islam : Ariful Islam
  4. omar@gobikhobor.com : omar Faruk : omar Faruk
  5. rsaidul34@gmail.com : Saidul Islam : Saidul Islam
গোবিন্দগঞ্জে সর্দি-জ্বরে আক্রান্ত সোনাচরণ দাশ মারা গেছে - গোবি খবর
সোমবার, ২৫ মে ২০২০, ১২:০৬ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
করোনা উপসর্গ নিয়ে গোবিন্দগঞ্জের বাসিন্দা বিদ্যুৎ প্রকৌশলী শিবলু’র মৃত্যু গোবিন্দগঞ্জে বিরোধের জেরে হামলায় ৩ জন গুরুত্বর আহত গাইবান্ধায় ২৪তম বিসিএস ফোরামের উদ্যোগে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ গোবিন্দগঞ্জের আলোচিত নাকাইহাটে হামলা ভাংচুরের ঘটনায় হুকুমদাতা সাজু মেম্বর গ্রেফতার গোবিন্দগঞ্জে মসজিদে মসজিদে একাধিক ঈদের জামাতের আয়োজন দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন স্বপ্নীল ফাউন্ডেশনের পরিচালক মু.আলমগীর হোসাইন কক্সবাজার জেলা ইসলামী যুব কক্সবাজার জেলাবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছে সুন্দরগঞ্জে শ্রমিকদের মাঝে বস্ত্র বিতরণ স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা লিটনের পক্ষে গোবিন্দগঞ্জে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ

গোবিন্দগঞ্জে সর্দি-জ্বরে আক্রান্ত সোনাচরণ দাশ মারা গেছে

  • আপডেট করা হয়েছে : রবিবার, ৫ এপ্রিল, ২০২০
  • ৪৭ বার পঠিত

গোবিখবর ডেস্ক:
গত ২ এপ্রিল জাতীয় পত্রিকা সহ স্থানীয় পত্রিকাগুলোতে প্রকাশিত হয় সোনাচরণের অসুস্থতার খবর। খবরটি বেশ সাড়া ফেলে। গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সর্দি-জ্বরে আক্রান্ত সেই সোনাচরণ দাশ (৭০) রবিবার সকাল ১১টা দিকে তার নিজ বাড়ীতে মারা গেছে। সে বিনা চিকিৎসায় জ্বর-সর্দি ও কাশির উপসর্গ নিয়ে মারা যায়। সোনাচরণ উপজেলার গুমানীগঞ্জ ইউনিয়নের অনন্তপুর গ্রামের মৃত নোছনা চরণ দাশের ছেলে। এলাকাবাসীরা জানায়, গত কয়েকদিন ধরে সর্দি জ্বর সহ করোনা উপসর্গে ভুগছিলেন তিনি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য হারেজুল ইসলাম জানান, এ বিষয়ে গত দু’তিন দিন আগে স্থানীয় প্রশাসন ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। কিন্তু তাদের পক্ষ থেকে কোনো সাড়া মেলেনি। তার মৃত্যুর পর থেকে ওই গ্রামে করোনা ভাইরাস আতঙ্ক আরো জোরদার হয়েছে। সোনাচরণের পারিবারিক সূত্র জানায়, সোনাচরণ দাশ কয়েকদিন আগে গলায় ব্যথা নিয়ে পল্লী চিকিৎসকের শরনাপন্ন হয়। স্থানীয় পল্লী চিকিৎসক শফিউল ইসলাম লেবু তাকে চিকিৎসা প্রদান করেন। কিন্তু চিকিৎসায় সে ভাল না হওয়ায় গত বৃহস্পতিবার পরিবারের লোকজন জ্বর ও সর্দির ওষুধ নিতে ওই ডাক্তারের বাড়িতে যায়। তখন ডাক্তার তাদেরকে উন্নত চিকিৎসা নেয়ার পরামর্শ দেন।

এ ঘটনায় গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মজিদুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, গত দু’তিন দিন আগে খবর নিয়ে জেনেছিলাম তিনি এ্যাজমা রোগে ভুগছিলেন। করোনা আক্রান্ত হয়ে তার মৃত্যু হয়েছে কিনা তার জন্য প্রয়োজনে নমুনা সংগ্রহ করা হবে।

এ ব্যাপারে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রামকৃষ্ণ বর্মনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমাদের এখানে করোনা পরীক্ষা করার কীট নেই। অন্য কেনো রোগে তার মৃত্যু হতে পারে। এসব ঘটনায় অনেকে মানুষের মাঝে গুজব ছড়িয়ে দেয়। তবে বিষয়টি নিয়ে খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে।

Comments

comments

এই খবর সবার সাথে শেয়ার করুন

এই ধরনের আরও খবর

গোবিন্দগঞ্জ ও তৎসংলগ্ন এলাকার জন্য

সারাদেশের জন্য

© স্বত্ব গোবিখবর ২০১৩-২০২০

কারিগরি সহযোগিতায় Pigeon Soft