সর্বশেষ সংবাদ

করোনা ভাইরাসরে কারণে কাঁকড়া ও কুঁচয়িা রপ্তানি বন্ধ : বিপাকে চাষী ও ব্যবসায়ীরা

মোঃ মামুন হোসনে, সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : দশেরে ৯০ শতাংশ কুঁচয়িা ও কাঁকড়া রপ্তানি হয় চনি। আর এই রপ্তানি যোগ্য কুঁচয়িা ও কাঁকড়া সিংহভাগ উৎপাদন হয় সাতক্ষীরায়। সম্প্রতি চনিে করোনাভাইরাস সংক্রমণরে কারণে বাংলাদশে থকেে রপ্তানি বন্ধ থাকায় বপিাকে পড়ছেে এই প্রক্রয়িার সাথে সম্পৃক্ত থাকা সাতক্ষীরার কয়কে হাজার মানুষ। ফলে র্অথনতৈকি ভাবে ক্ষতগ্রিস্ত হচ্ছে দশে ফলে একদকিে ব্যবসা বন্ধ অপরদকিে স্থানীয় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদরে পাওনা টাকা দতিে না পরেে বপিাকে পড়ছেনে আড়ৎদাররাও।

সাতক্ষীরা এলাকার বশেরি ভাগ মানুষরে জীবকিার প্রধান উৎস মৎস্যঘরে হওয়ায় নোনা কুঁচয়িার পাশাপাশি কাঁকড়া চাষে সৃষ্টি হয়ছেে অপার সম্ভাবনা। গড়ে উঠছেে দশেরে বৃহৎ কুঁচয়িা ও কাঁকড়ার বাজার। এখান থকেে চীনে রপ্তানরি জন্য সাতক্ষীরা থকেে দু’তনি দনি পরপর পাঁচ থকেে ছয় টন কুঁচে ঢাকায় পাঠানো হতো। তবে করোনা ভাইরাস সংক্রমণরে ফলে গত ২৫ তারখি থকেে রপ্তানি বন্ধ থাকায় সংগ্রহকৃত কুচয়িা মরে যাচ্ছে ফলে র্আথকি ভাবে ক্ষতগ্রিস্ত হচ্ছে ব্যবসায়ীরা রাজস্ব হারাচ্ছে দশে। ফলে একদকিে ব্যবসা বন্ধ অপরদকিে ঋণ ও স্থানীয় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদরে পাওনা টাকা দতিে না পরেে বপিাকে পড়ছেনে আড়ৎদাররাও। ।

এদকিে কুঁচয়িা ও কাঁকড়া রপ্তানি বন্ধ থাকায় খটেে খাওয়া মানুষরে সংসার পড়ছেে সংকট। চীনে রপ্তানি বন্ধ হওয়ার পর বাজার থকেে যে কুঁচয়িা কনিছনে তার বড় অংশই মারা যাচ্ছ। ফলে তারা র্আথকিভাবে লোকসানে পড়ছেনে বলে জানয়িছেনে এই ব্যবসায়ী।

অবলিম্বে কাঁকড়া ও কুঁচয়িা রপ্তানি করা না গলেে এ পশোর সঙ্গে জড়তি সাতক্ষীরার কয়কে হাজার মানুষ র্কম হীন হয়ে পথে বসতে পারে বলে আশংকা করছনে সংশ্লষ্টিরা

Comments

comments

Leave a Reply