সর্বশেষ সংবাদ

সাতক্ষীরা নগরঘাটার মাঠে এ বছর গাঁদা ফুলের পাশাপাশি রজনীগন্ধা ও গোলাপের ঝলকানি

মোঃ মামুন হোসেন, সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : তালা উপজেলার নগরঘাটা ইউনিয়নের মিঠাবাড়ী গ্রামে গত বছর দেশী জাতের গাঁদা ফুলের চাষ করে অভাবনীয় সাফল্য পেয়ে এ বছর গাধা ফুলের পাশাপাশি রাজনীগন্ধা ও গোলাপের চাষ করেছেন কৃষক আকরম আলী।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, গত মৌসুমে প্রথমবারের দেড় বিঘা জমিতে দেশী জাতের গাঁদা ফুল চাষ করেন সাতক্ষীরা আলীপুর গ্রামের কৃষক আকরম আলী। আর প্রথমবারেই সাফল্যের মুখ দেখেছেন তিনি। তাই এবার তিনি গাদা ফুলের পাশাপাশি রজনীগন্ধা ও গোলাপ ফুলের চাষ করেছেন।

কৃষক আকরম আলী জানান, দেড় বিঘা জমিতে গাঁদা ফুল চাষাবাদে ফুলের কাটিং, সেচ, চাষাবাদ এবং ছত্রাক নাশক ব্যবহার করতে সব মিলিয়ে খরচ হয়েছিল মাত্র ৫৫-৬০ হাজার টাকা। এক মাসের মধ্যেই চারা গাছগুলো থেকে বেরিয়ে আসে ফুলের কুড়ি। এক-দেড় মাসের মধ্যে ফুলে ফুলে ভরে যায় তার ক্ষেত। তবে জেলায় ফুলের জন্য প্রয়োজনীয় কিটনাশক বা ঔষধ না পাওয়ায় পার্শ্ববর্তী জেলা যশোর থেকে আনতে অনেক ভোগান্তি পেতে হয় বলে জানান তিনি।

গাঁদা ফুল চাষের ব্যপারে কৃষক আকরম আলী বলেন, আমি এই ২৬ বছর ধরে ফুল চাষের সাথে জড়িত। গত বছর আমি নগরঘাটা মিঠাবাড়ী গ্রামের উত্তরপাড়া মাঠে ৫ বিঘা জমি নিয়ে তার থেকে দেড় বিঘা জমিতে ফুল চাষ করি। এখানে ফুল চাষ করে আমি সফল হয়েছি। আমার সংসার চালাতে এখন আর কষ্ট হয় না। গত বারের তুলনায় এবার আরো বেশি পরিমাণ জমিতে গাদা, রজনী ও গোলাপ ফুলের চাষ করেছি। আশা করছি গত বারের তুলনায় এবার লাভের ভাগ বেশি পাবো।

জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে তার ফুলের বাগান দেখতে ও ফুল ক্রয়ের জন্য ক্ষেতে ছুটে যাচ্ছেন ফুল প্রেমী মানুষ। তবে এক শ্রেণীর মানুষ আছে যারা শুধু ছবি (সেলফি) তোলার জন্য ক্ষেতে ভীড় জমাচ্ছে প্রতিনিয়ত।

আকরম আলী আরও বলেন, যশোরের গদখালির মত সাতক্ষীরা জেলাও ফুল চাষে একদিন সুনাম অর্জন করতে পারবে। গত বছর চাহিদামত লাভ পাওয়ায় এবার পাঁচ বিঘা জমিতে গাঁদা ফুলসহ রজনী গন্ধ্যা ও গোলাপ ফুলের চাষ করেছেন তিনি।

Comments

comments