সর্বশেষ সংবাদ

ঢাকায় অনুষ্ঠিত হলো কো-ওয়ার্ক নেটওয়ার্কিং নাইট

গোবিখবর ডেস্ক: বাংলাদেশে স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম গড়ে তোলার জন্য সরকারি ও বেসরকারী পর্যায়ে নানা উদ্যোগ গ্রহন করা হচ্ছে। তার মধ্যে অন্যতম একটি উদ্যোগ হলো কো-ওয়ার্ক। মূলত তরুণ উদ্যোগতাদের মধ্যে পারস্পারিক সহযোগিতা মূলক মনোভাব সৃষ্টি করা এবং দেশীয় প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করা উদ্যোক্তাদের প্রমোট করার লক্ষ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ভিত্তিক কমিউনিটি “কো-ওয়ার্ক অফিস শেয়ারিং এন্ড কো-ওয়ার্কিং” সংক্ষেপে কো-ওয়ার্ক গ্রুপের সৃষ্টি ।

কো-ওয়ার্ক গ্রুপের ফাউন্ডার আসিফ আহনাফ মনে করেন বর্তমানে তরুণ উদ্যোক্তাদের এগিয়ে যেতে হলে কম্পিটিশন বাদ দিয়ে কো-পিটিশন এর চর্চা গড়ে তুলতে হবে। গ্রুপ প্রধান সাদিয়া ইসলাম মিতু বলেন কোওয়ার্ক সব সময় তরুন উদ্যোক্তাদের ব্যবসা বৃদ্ধির জন্য সহায়তা করে যাচ্ছে।

গতকাল ২২ নভেম্বর রাজধানীর বাড্ডায় বিটিআই প্রিমিয়াম প্লাজায় অনুষ্ঠিত এক নেটওয়ার্কিং নাইট এ এমন মন্তব্য করেন তিনি। উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কো-ওয়ার্ক গ্রুপের লিডার ও বাহারিকা এর ফাউন্ডার সাদিয়া ইসলাম মিতু, ও গ্রুপটির মডারেটর ও ফেমাস ফুড এর পরিচালক মামুনুর রশিদ, অনিক রায়হান , স্বপ্নীল মোত্তাফি বিল্লাহ সহ প্রায় ৪০ জন তরুণ উদ্যোক্তা।

এই আড্ডায় কোওয়ার্ক সিদ্ধান্ত নেয়, এখন থেকে প্রতি সপ্তাহে একদিন গ্রুপের মেম্বারদের বিসনেসের নতুন প্রোডাক্ট লঞ্চিং করা হবে। এর ফলে তরুন উদ্যোক্তাদের ব্যবসা আরো বৃদ্ধি পাবে। পোডাক্ট লঞ্চিং করবেন গ্রুপের এডমিন প্যানেলের এক বা একাধিক সদস্য।
এছাড়াও প্রতি মাসে একদিন কোওয়ার্ক ডিসকাউন্ট ডে ঘোষনা করা হবে। সেদিন গ্রুপের সব মেম্বাররা তাদের বিসনেসের যেকোন প্রোডাক্টসের ডিসকাউন্ট ঘোষনা করবে। এতে গ্রুপের মেম্বাররা ওই ডিসকাউন্ট রেটে প্রোডাক্ট কিনতে পারবে। এই দুটি সেবা সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করেন গ্রুপ মডারেটর মামুনুর রশিদ।

এই দিন নতুন স্টার্টআপ ওভেন কিং এর প্রোডাক্ট লাউঞ্চ করার মধ্য দিয়ে কোওয়ার্ক প্রোডাক্ট লঞ্চিং সেবাটির উদ্বোধন ঘোষনা করেন গ্রুপ ফাউন্ডার আসিফ আহনাফ ও গ্রুপ লিডার সাদিয়া ইসলাম মিতু।

এরপর আরেক মডারেটর স্বপ্নীল মোত্তাফি বিল্লাহ কিছু চমক সবার সামনে তুলে ধরেন সেটি হলো পাটের পলিথিনের সুফল ও আলুর পলিথিন নিয়ে বিস্তারিত কথা বলেন।
এদিকে তরুন উদ্যোক্তা রায়হান ইসলাম ফ্লাট ক্রয়ের জন্য গ্রাহকদের সেবা দিতে শুরু করেছেন সে বিষয়ে তিনি বিস্তারিত তুলে ধরেন।

বিশ্বজুড়ে কো-ওয়ার্ক এর ধারণা অনেক জনপ্রিয়। এবং এটি ক্ষুদ্র ও মাঝারি তরুণ উদ্যোক্তাদের বেশ সহায়ক হিসেবে ধারণা করা হয়। একজন ফ্রিল্যান্সার কিংবা নতুন উদ্যোক্তাদের জন্য প্রাথমিক পর্যায়ে অফিস রেন্ট ও মেইনটেন্যান্সে বেশ কষ্ট সাধ্য হয়ে পড়ে। তাই অফিস শেয়ারিং হতে পারে এর সহজ সমাধান। এছাড়া এই গ্রুপটি তরুণ উদ্যোক্তাদের মধ্যে নেটওয়ার্কিং সৃষ্টিতে বেশ প্রভাব রাখে।

সবশেষে কোওয়ার্ককে সারা দেশে ছড়িয়ে দিতে আগামী ২৯ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জে ও ৬ ডিসেম্বর চট্টগ্রামে কোওয়ার্ক মিটআপ করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

Comments

comments