সর্বশেষ সংবাদ

ডেঙ্গুতে আমাদের দেশে মৃতের সংখ্যা কম : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মির-হোসেন সরকার, ঢাকা সংবাদদাতা: বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা কম বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। শনিবার (৩ আগস্ট) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পরিদর্শনে গিয়ে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ডেঙ্গু মোকাবিলায় ডাক্তাররা দিন রাত কাজ করছে। আমরা মনিটরিং করছি। ডাক্তার, নার্সের অভাব নেই, হাসপাতালে কিটসের অভাব নেই।  অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশে ডেঙ্গুতে মৃত্যুর সংখ্যা কম বলে দাবি জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, অন্যান্য দেশে এর সংখ্যা অনেক বেশি। বিশ্বের খুব কম দেশ আছে যেখানে ডেঙ্গুতে কেউ মারা যায়নি। ফিলিপাইন, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়াতে ডেঙ্গু রোগে যেভাবে আক্রান্ত হচ্ছে আমাদের দেশে তা হচ্ছে না।

তিনি আরো বলেন, সরকারি তথ্য মতে আমাদের দেশের হাসপাতালগুলোতে হাজার হাজার না এখন পর্যন্ত ১৭শ’র মতো ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হওয়ার খবর আমরা জানতে পেরেছি। এই সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে না। সবাই সচেতন হলে ডেঙ্গু নির্মূল করা সম্ভব বলে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, আমরা ইতোমধ্যে ২ লাখ কিট বিভিন্ন হাসপাতালে দেয়ার ব্যবস্থা করছি এবং প্রত্যেক হাসপাতালে মশারি দিয়েছি। তাই ডেঙ্গু মোকাবিলায় আতঙ্কিত এবং নেতিবাচক কথা বলার কোনো কারণ নেই।

ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী ও মৃতের সংখ্যা

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে আরও ১ হাজার ৬৮৭ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছে এবং চিকিৎসাধীন ৬ হাজার ৫৮২ জন বলে জানিয়েছে সরকার। চলতি বছরের সরকারি হিসাব অনুযায়ী, এরই মধ্যে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা ২১ হাজার ছাড়িয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনে। কিন্তু বাস্তব পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ।

রাজধানীর ৪৯টি সরকারি-বেসরকারি ও ঢাকার বাইরে শুধু সরকারি হাসপাতালে ভর্তি রোগীর তথ্য পর্যালোচনা করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আক্রান্তের এই সংখ্যা নিরূপণ করছে। এর বাইরে কয়েক হাজার বেসরকারি হাসপাতাল-ক্লিনিকে যেসব মানুষ চিকিৎসা নিচ্ছে, তারা হিসাবের আওতায় আসছে না। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সরকারি হিসাবে এক-দশমাংশ চিত্র পাওয়া যাচ্ছে মাত্র। ৯০ শতাংশ রোগী হিসাবেই আসছে না। শুক্রবারও সারা দেশে ডেঙ্গুতে পাঁচজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার রাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে মালিহা মাহফুজা অনন্যা নামে এক অন্তঃসত্ত্বা নারীর মৃত্যু হয়েছে। তিনি বিজিএমইএ বিশ্ববিদ্যালয়ের ফ্যাশন ও টেকনোলজি বিভাগ থেকে পড়াশোনা শেষ করে মেঘনা নিট কম্পোজিট নামে একটি প্রতিষ্ঠানে ডিজাইনার হিসেবে চাকরি করতেন। অনন্যা উত্তরায় পরিবারের সঙ্গে বসবাস করতেন। গত ২১ জুলাই জ্বরে আক্রান্ত হওয়ার পর দিন তাকে উত্তরার লুভানা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরীক্ষায় ডেঙ্গু শনাক্ত হওয়ার পর তাকে বিএসএমএমইউতে ভর্তি করা হয়।

এছাড়া শুক্রবার রাজধানীর মিটফোর্ড হাসপাতালে আনোয়ার হোসেন ও মিনার নামে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। নোয়াখালীতে মোশাররফ হোসেন ও আবদুল মোতালেব নামে ‘দুজনের’ মৃত্যু হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন্স সেন্টার অ্যান্ড কন্ট্রোল রুমের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছর এ পর্যন্ত সারা দেশে ২১ হাজার ২৩৫ জন আক্রান্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে রাজধানীতে আক্রান্তের সংখ্যা ১৭ হাজার ৪৫। এ ছাড়া সারা দেশে আরও ৪ হাজার ১৯০ জন আক্রান্ত হয়েছে। শুক্রবার নতুন করে এক হাজার ৬৮৭ জন আক্রান্ত হয়েছে।

ঢাকা বিভাগ : ঢাকা বিভাগের ঢাকা জেলায় ২৮২ জন, গাজীপুরে ১৬০, গোপালগঞ্জে ৩১ জন, মাদারীপুরে ৫০ জন, মানিকগঞ্জে ৮৭ জন, নরসিংদীতে ৫৫ জন, রাজবাড়ী ৫৬ জন, শরীয়তপুরে ২৯ জন, টাঙ্গাইলে ৯০ জন, মুন্সীগঞ্জে ৩৭ জন, কিশোরগঞ্জে ১৬২ জন, নারায়ণগঞ্জে ৫৮ জন এবং ফরিদপুরে ১১ জনসহ মোট ১ হাজার ১০৮ জন আক্রান্ত হয়েছে।

চট্টগ্রাম বিভাগ : চট্টগ্রাম বিভাগের চট্টগ্রাম জেলায় ২৮৯ জন, ফেনীতে ১২২ জন, কুমিল্লায় ৮৬ জন, চাঁদপুর ১৪৯ জন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৪১ জন, লক্ষ্মীপুরে ৫২ জন, নোয়াখালীতে ৭২ জন, কক্সবাজারে ৩০ জন, খাগড়াছড়িতে ১৭ জন, রাঙ্গামাটিতে ৬ জন এবং বান্দরবানে একজনসহ মোট ৮৫৬ জন আক্রান্ত হয়েছে।

খুলনা বিভাগ : খুলনা জেলায় ২৩০ জন, কুষ্টিয়ায় ৯৭ জন, মাগুরায় ২০ জন, নড়াইলে ১৮ জন, যশোরে ১৩৪ জন, ঝিনাইদহে ৪৩ জন, বাগেরহাটে ১০ জন, সাতক্ষীরায় ৩১ জন, চুয়াডাঙ্গায় ১৭ জন ও মেহেরপুরে ৬ জনসহ মোট ৬০৬ জন আক্রান্ত হয়েছে।

রাজশাহী বিভাগ : রাজশাহী জেলায় ১১১ জন, বগুড়ায় ১৭৭ জন, পাবনায় ৫৫ জন, সিরাজগঞ্জে ৮১ জন, নওগাঁয় ১৮ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ২০ জন, নাটোরে ৮ জন ও জয়পুরহাটে ৪ জনসহ মোট ৪৭৪ জন আক্রান্ত হয়েছে।

রংপুর বিভাগ : রংপুর জেলায় ১২৩ জন, লালমনিরহাটে ৬ জন, কুড়িগ্রামে ১৭ জন, গাইবান্ধায় ১১ জন, নীলফামারীতে ১৬ জন, দিনাজপুরে ৪৭ জন, পঞ্চগড়ে ৩ জন ও ঠাকুরগাঁওয়ে ১৮ জনসহ মোট ২৪১ জন আক্রান্ত হয়েছে।

বরিশাল বিভাগ : বরিশাল জেলায় ২০১ জন, পটুয়াখালীতে ৩৭ জন, ভোলায় ২১ জন, পিরোজপুরে ১৬ জন, ঝালকাঠিতে ৮ জন, বরগুনায় ৩৫ জনসহ মোট ৩১৮ জন আক্রান্ত হয়েছে।

সিলেট বিভাগ : সিলেট জেলায় ১২৫ জন, সুনামগঞ্জে ৯ জন, হবিগঞ্জে ১৫ জন, মৌলভীবাজারে ২৮ জনসহ মোট ১৭৭ জন আক্রান্ত হয়েছে।

ময়মনসিংহ বিভাগ : ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে ৩০২ জন, জামালপুরে ৬১ জন, শেরপুরে ২৫ জন, নেত্রকোণায় ১৩ জনসহ মোট ৪০১ আক্রান্ত হয়েছে।

Comments

comments