সর্বশেষ সংবাদ

সাতক্ষীরায় প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস চক্রের ২৯ সদস্য র‌্যাবের হাতে আটক

মোঃ মামুন হোসেন, সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরার কলারোয়ায় প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের ২৯ সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) ৬ সদস্যরা।
শুক্রবার (২৫ মে) সকালে কলারোয়া থানার পাশের একটি ভবনে ফাঁসকৃত প্রশ্নপত্রের উত্তর ঠিক করার কাজে নিয়োজিত অবস্থায় পরীক্ষার্থী ও প্রশ্ন ফাঁস চক্রের এসব সদস্যকে আটক করা হয়।
আটককৃতদের মধ্যে কীডস ক্লাব কোচিং সেন্টারের পরিচালক ও জনতা ব্যাংক সেনেরগাতি শাখার ম্যানেজার আফতাব আহমেদ, সোনালী ব্যাংক কলারোয়া শাখার অফিসার সোহাগ হোসেন, কৃষি ব্যাংক কলারোয়া শাখার অফিসার মনিরুল ইসলাম, রামচন্দ্রপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আমিরুল ইসলাম, ঢাকার আব্দুল হালিম ও আশাশুনির রইচউদ্দিনের ছেলে তরিকুল ইসলাম উল্লেখযোগ্য।
র‌্যাব ৬ এর সিও লেফটেন্যান্ট কর্ণেল সৈয়দ মোঃ নুরুস সালেহীন ইউসুফ সংবাদ সম্মেলনে জানান, বৃহস্পতিবার রাতে প্রাথমিক স্কুল শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণেচ্ছুরা জড়ো হয় কলারোয়া উপজেলা সদরের সোনালী সুপার মার্কেট ভবনের কীডস ক্লাব সেন্টারে। তারা সেখানে রাত্রিযাপন করে।
তিনি আরও জানান, রাতভর এবং সকালে মোবাইল ফোনে তাদের কাছে আসা প্রশ্নপত্র ব্লাকবোর্ডে লিখে সাথে সাথে তার উত্তরও নির্দেশ করা হতে থাকে। অংশগ্রহণেচ্ছুরা তা শিখে নিতে থাকেন।
এমন খবর পেয়ে র‌্যাব সদস্যরা ভবনটি ঘিরে ফেলে। সেখান থেকে প্রথমে ২২ জন পরে তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী আরও ৭ জনসহ ২৯ জনকে আটক করা হয়। সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে কেন্দ্রে সরবরাহকৃত প্রশ্নপত্র এবং আটককৃতদের কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া প্রশ্নপত্র হুবহু মিল আছে।
র‌্যাব জানায়, তারা জানতে পেরেছেন যে ঢাকায় বসে একটি প্রশ্ন ফাঁসকারী চক্র ১২ লাখ টাকার চুক্তিতে তাদের কাছে মোবাইল ফোনে প্রশ্ন ও তার উত্তর বলে দেবে।
এসব প্রশ্ন ও উত্তর ব্লাকবোর্ডে লিখে পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়া হবে। এজন্য সিন্ডিকেটের হাতে অগ্রিম পাঁচ লাখ টাকা দিতে হয়েছে। বাকি টাকা পরীক্ষা শেষে দেওয়ার কথা রয়েছে বলে জানান র‌্যাবের এ কর্মকর্তা। আটককৃতদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে দুই বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

Comments

comments