সর্বশেষ সংবাদ

কাঠের সেতু এখন বিনোদন কেন্দ্র

রাইসুল ইসলাম খোকন, সরিষাবাড়ী প্রতিনিধিঃ
জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে গ্রামবাসীর নিজস্ব অর্থায়ন ও স্বেচ্ছাশ্রমে নির্মিত কাঠের সেতু যোগাযোগ ব্যাবস্থার উন্নয়ন ঘটিয়ে এখন বিনোদন পার্কে রুপান্তরিত হয়েছে। গ্রামীণ এ জনপদের ক্লান্ত পরিশ্রান্ত মানুষ স্বস্থির নিশ্বাস ফেলছে অবসরে। উপজেলার সাতপোয়া ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী চর সরিষাবাড়ী গ্রামের যমুনা নদীর শাখা নদীর উপর এ কাঠের সেতুটি নির্মিত হয়েছে। এলাকাবাসীর মাঝেও উৎফুল­ লক্ষ করা গেছে। স্থানীয় এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে-সরিষাবাড়ী উপজেলার চর সরিষাবাড়ী (আদি সরিষাবাড়ী) দেওপাড়া, অলিপাড়া, মাজনাবাড়ী, শালদহ, ব্রাক্ষনজানি, কুমারিয়াবাড়ী, ছেন্নার চর, মানিকপটল গ্রামের মানুষ উপজেলা সদরে ও সিরাজগঞ্জ জেলার কাজীপুর উপজেলার যাতায়াত করতে ১৪-১৫হাজার মানুষের নিত্যদিনের চলাচলের একমাত্র রাস্তা এ সেতু স্থল। এখানে একটি সরকারী ভাবে ব্রীজ না থাকায় দ‚র্ভোগ নিয়ে জীবন যাপন করছিল এলাকাবাসী। বর্ষাকালীন সময়ে কয়েকটি গ্রামের স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী, অসুস্থ রোগীর চিকিৎসা সেবা, জনসাধারন মানুষের যাতায়াত উৎপাদিত ফসলাদি পরিবহনে বাজারজাত করা কষ্ট নিয়ে জীবন যাপন করে আসছিল। এসব এলাকার মানুষের ছেলে কিংবা মেয়ে বিয়ে দিতে বা করাতে কেউ আত্বীয়তা করতে রাজী হয় না। দ‚র্দশা লাঘব করতে এলাকাবাসী খেয়া নৌকার ভোগান্তি দ‚রীকরণে এলাকাবাসীর নিজস্ব অর্থায়নে চলতি বছরের ২ এপ্রিল উদ্যেগ নেন একটি সেতু নির্মান করার। এ লক্ষ্যে সেতুটি ইউকিলিপটার গাছের পিলার দ্বারা ৩৪০ ফিট দৈর্ঘ সাড়ে ৬ ফিট প্রস্ত একটি কাঠের সেতু ও রাস্তা নির্মানে ব্যায় ধরা হয় ১৫ লক্ষ টাকা। ইতিমধ্যে এলাকাবাসীর নিজস্ব অর্থায়নে দুই মাস সময় সীমার মধ্যে কাঠের সেতু ও রাস্তা নির্মান প্রায় সম্পন্ন হয়েছে। কাঠের সেতুটি পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে উন্মুমুক্ত করা হয়েছে। ফলে সেতু স্থলে উপজেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে নারী-পুরুষ সমবেত হয়ে কাঠের সেতুতে বৈকালিক অবসর সময় কাটাচ্ছেন। এখানে উৎসুক জনতার উপচেপড়া ভীড় লক্ষ করা গেছে। এলাকাবাসীর নির্মিত কাঠের সেতুটি যেন মিনি বিনোদন পার্কে পরিনত হয়েছে। চর সরিষাবাড়ীর কাঠের সেতু স্থল থেকে পৌরসভার ঝালুপাড়া ঘাট পর্যন্ত চলাচলের জন্য রাস্তা ও সরকারী অর্থায়নে একটি ব্রীজ নির্মানের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর এলাকাবাসী আবেদন করেছেন বলে জানা গেছে। কাঠের সেতু নির্মানে সাতপোয়া ইউপি চেয়ারম্যান আবু তাহের, ইউপি সদস্য আলমগীর কবীর আলম, শরিফুল ইসলাম, জাহিদুল ইসলাম, সোহেল রানাসহ এলাকার গণ্যমসান্য ব্যক্তিবর্গ আন্তরিক ভাবে কাজ করেছেন। সাতপোয়া ইউপি চেয়ারম্যান আবু তাহের জানান, আমাদের মাননীয় তথ্য মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রীসহ প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আর্কষণ করছি আমাদের এই আদি চর সরিষাবাড়ী দিয়ে নামকরন আমাদের এই সরিষাবাড়ী। তাই আমাদের চর সরিষাবাড়ী থেকে ঝালুপাড়া ঘাট পর্যন্ত সেতু ও চলাচলের রাস্তা নির্মানের আশুদৃষ্টি কামনা করছি। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী মুহাম্মদ শফিউল­াহ খন্দকার জানান, ব্রীজটি সরকারীভাবে নির্মান করার জন্য এলজিইডি ভবনে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। ব্রীজটি দ্রæত অনুমোদনের জন্য চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

Comments

comments