সর্বশেষ সংবাদ

ভারতের রাজস্থানে মুসলিম হত্যাযর আসামীর সমর্থনে অর্থ তহবিল

ভারতের রাজস্থান রাজ্যে একজন মুসলিম দিনমজুরকে কুপিয়ে হত্যা ও পরে তার গায়ে আগুন লাগিয়ে দেবার দায়ে অভিযুক্ত ব্যক্তির স্ত্রীর ব্যাংক অ্যাকাউন্ট পুলিশ সাময়িকভাবে বন্ধ করে দিয়েছে।

হত্যার দায়ে সন্দেহভাজন শম্ভুলালকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।

পুলিশ বলছে, তার স্ত্রীর ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বন্ধ করার আগে পর্যন্ত সেখানে প্রায় দুই লাখ ৭০ হাজার রুপি জমা পড়েছে।

শম্ভুলালের পরিবারের জন্য অর্থসাহায্য চেয়ে প্রচার চালানোর জন্য দুই ব্যক্তিকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।

মি: লালের বিরুদ্ধে একজন মুসলিমকে কুপিয়ে হত্যার এবং তারপর ওই হামলার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেবার অভিযোগ আনা হয়।

রাজস্থানের রাজসমুন্দ জেলায় যেখানে মুহম্মদ আফরাজুল নামে ওই মধ্যবয়সী মুসলমানকে হত্যা করা হয়েছিল, সেখানকার ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা আনন্দ্ শ্রীবাস্তবা বিবিসিকে বলেছেন “হত্যার ঘটনা নিয়ে আমাদের তদন্তের কারণে” ওই অ্যাকাউন্ট সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে।

মি: শ্রীবাস্তবা বলেছেন ইন্টারনেট ব্যবহার করে গুজব ছড়ানো বন্ধ করার জন্য রাজস্থান শহরে এবং পাশের উদয়পুর শহরে ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

সম্প্রতি দিল্লিতে এধরনের সহিংসতা বন্ধের দাবিতে 'শান্তি মিছিল' করেছে ভারতের একটি মুসলিম সংগঠন জামায়েত উলামা-ই-হিন্দ্।সন্দেহভাজন হত্যাকারীকে ভিডিওতে দেখা গেছে বলতে “মুসলিমদের হাত থেকে হিন্দুদের সম্মানরক্ষার খাতিরে” এই ঘটনা।

পুরিশ কর্মকর্তা বলেছেন মি: লাল ও তার পরিবারের জন্য অর্থসাহায্য চেয়ে প্রচার চালানোর দায়ে যে দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের একজন উপ্‌দেশ রানা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মুসলমানদের বিরুদ্ধে ”উস্কানিমূলক মন্তব্য” পোস্ট করেছে।

নিহত মুহম্মদ আফরাজুল পশ্চিমবঙ্গ থেকে রাজস্থানে কাজ করতে যাওয়া একজন শ্রমিক এবং এক যুগের বেশি তিনি রাজস্থানেরই বাসিন্দা ছিলেন।

হত্যার পর পোস্ট করা দ্বিতীয় আরেকটি ভিডিওতে মি: লালকে দেখা গেছে কার্যত ওই ঘটনার সমর্থনে এই যুক্তি দিতে যে তিনি ”মুসলিমদের হাত থেকে হিন্দুদের সম্মানরক্ষার খাতিরে” এ কাজ করেছেন।

সোসাল মিডিয়ায় শম্ভুলালকে সমর্থন করে প্রশংসামূলক নানা মন্তব্য পোস্ট করা হয়েছে ফেসবুক আর হোয়াটসঅ্যাপেসোসাল মিডিয়ায় শম্ভুলালকে সমর্থন করে প্রশংসামূলক নানা মন্তব্য পোস্ট করা হয়েছে ফেসবুক আর হোয়াটসঅ্যাপে

মি: লাল মুসলমানদের উদ্দেশ্যে সতর্কবাণী উচ্চারণ করেছেন : ”আমাদের দেশে ‘লাভ জিহাদ’ যদি করতে যান আপনার এই পরিণতি হবে।”

ভারতের ক্ষুদ্র কয়েকটি কট্টর হিন্দু গোষ্ঠির প্রচারণায় এই ‘লাভ জিহাদ’ শব্দটি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

এই গোষ্ঠিগুলো মুসলমানদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছে যে তারা ”হিন্দু নারীদের ভুলিয়ে ভালিয়ে তাদের নিজেদের ধর্ম থেকে সরিয়ে আনার ষড়যন্ত্রে” লিপ্ত রয়েছে।

সূত্র: বিবিসিবাংলা

Comments

comments